Breaking

Post Top Ad

Your Ad Spot

Sunday, 31 October 2021

হাবড়ায় পাম্পিং স্টেশন প্রকল্পের কাজের সূচনা বনমন্ত্রীর

  ‌

Pumping-station-at-Habra

সমকালীন প্রতিবেদন : ‌উত্তর ২৪ পরগনার হাবড়া পুরসভার কিছু ওয়ার্ডের জলযন্ত্রনা থেকে মানুষকে চিরস্থায়ী মুক্তি দিতে বুস্টিং স্টেশন নির্মান প্রকল্পের কাজের সূচনা হল। রবিবার ভিতপুজো দিয়ে এই প্রকল্পের সূচনা করলেন হাবড়ার বিধায়ক তথা রাজ্যের বনমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। সোমবার থেকেই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়ে যাবে। এরজন্য কলকাতা মেট্রোপলিটন ডেভেলপমেন্ট অথরিটির (‌কেএমডিএ)‌ একটি দল ইতিমধ্যেই হাবড়ায় এসে পৌঁছেছে।


দীর্ঘদিন ধরেই হাবড়া পুরসভার ৭, ৮ এবং ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দারা জল যন্ত্রণার সম্মুখীন হচ্ছেন। ফি বছর সেখানে কোথাও হাঁটু জল আবার কোথাওবা কোমর সমান জল জমে যায়। এই জলের ভেতর দীর্ঘ দিন ধরে বসবাস করতে হয় তাঁদের। গত ২ বছরে জমা জলে মৃত্যু হয়েছে দুজনের। গতবছর ২৪ টি পাম্প বসিয়ে ১৪ দিন ধরে সেই জমা জল সরানোর ব্যবস্থা করা হয়। গতবছরই মন্ত্রী কথা দিয়েছিলেন, এবছর সমস্যার স্থায়ী সমাধান করবেন। সেই অনুযায়ী এদিন সেই কাজের সূচনা হল।


এদিন জ্যোতিপ্রিয় বলেন, 'গতবছর মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী হাবড়ার মানুষের এই সমস্যার কথা জানার পর পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেন। সেই অনুযায়ী রাজ্য সরকার ২৪ কোটি ৯৬ লক্ষ টাকা অনুমোদন করে। কেএমডিএর বিশেষজ্ঞরা বহুবার এলাকা পরিদর্শন করে গেছেন। অবশেষে হাবড়ার সরদারপাড়া এবং বাহান্ন পরিবার– এই দুটি এলাকাকে বেছে নিয়ে সেখানে বুস্টিং পাম্পিং স্টেশন নির্মানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। আজ সরদারপাড়ায় তারই একটি প্রকল্পের সূচনা হল।'


সরদারপাড়ায় এই প্রকল্প নির্মানের জন্য হাবড়া পুরসভা ১২ লক্ষ টাকা দিয়ে জমি কিনেছে। এই পাম্পিং স্টেশনের মাধ্যমে জমা জল পদ্মা খালে গিয়ে পরবে। অন্যদিকে, দ্বিতীয় পাম্পিং স্টেশনের মাধ্যমে জমা জল নাগরা বিল হয়ে ইছামতী নদীতে গিয়ে পরবে। এই এলাকায় আগে যে অপরিকল্পিতভাবে দুটি গেট নির্মান করা হয়েছিল‌, সেগুলি ভেঙে দিয়ে নতুন করে গেট নির্মান করা হবে। তারজন্য আরও সাড়ে ৩ কোটি টাকা অনুমোদন করা হয়েছে। এই কাজ সম্পন্ন করার জন্য কেএমডিএ এর ২৫ জনের একটি দল ইতিমধ্যেই হাবড়ায় এসে পৌঁছেছে। সোমবার থেকে তাঁরা কাজ শুরু করবেন। আশা করা যায়, আগামী এক মাসের মধ্যে এই কাজ শেষ হবে। এই দুটি প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হলে হাবনা পুরসভার ৩ টি ওয়ার্ডের প্রায় ৭ হাজার মানুষ উপকৃত হবেন বলে মন্ত্রী এদিন জানান।





No comments:

Post a Comment