Breaking

Post Top Ad

Your Ad Spot

Friday, 24 September 2021

‌বিশ্ব জলবায়ু ধর্মঘট : ‌আমরা কতটা সচেতন

World-climate-strike

বিশ্ব জলবায়ু ধর্মঘট : ‌আমরা কতটা সচেতন

বাসুদেব পাল

আজ ২৪ মার্চ শুক্রবার বিশ্ব জলবায়ু ধর্মঘট। এই ধর্মঘটে কোনও দোকানপাট বন্ধ রাখার বিষয় নয়। এই ধর্মঘট জলবায়ু তথা পরিবেশ সুস্থ রাখার জন্য। সুইডেনে ২০১৮ সালে গ্রেটা থুনবার্গ নামে ১৬ বছরের ‌এক ছাত্রী প্রত্যেক শুক্রবার স্কুলে না গিয়ে পরিবেশ বাঁচানোর তাগিদে আন্দোলন করতে শুরু করে।


তার এই আন্দোলনের সমর্থনে তার বন্ধুবান্ধবরা বিভিন্ন জায়গাতে প্রতি শুক্রবার স্কুলে না গিয়ে বিভিন্ন জায়গাতে জমায়েত করে। সেখানে তারা  পরিবেশ সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করতে থাকে। প্রতি শুক্রবার পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে এমন ঘটনা ঘটতে থাকে। এই আন্দোলন 'ফ্রাইডেস ফর ফিউচার' আন্দোলন রূপে সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়ে। ১৬৫ টিরও বেশি দেশে বিভিন্ন শহরে, গ্রামে এই আন্দোলন ঘনীভূত হয়।


অনেকেই কটাক্ষ করেন, ছাত্রছাত্রীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে না গিয়ে কেন আন্দোলনে অংশগ্রহণ করছে। গ্রেটা থুনবার্গ এবং তার সহকর্মীরা স্পষ্ট ভাষায় বলে, পরিবেশ যদি সুস্থ না থাকে, তাহলে ভবিষ্যৎ কিভাবে সুরক্ষিত হবে? পরবর্তী প্রজন্মের জন্য শিক্ষার যতই আধুনিক ব্যবস্থা করা হোক, যত অর্থ সঞ্চয় করে রাখা হোক, পরিবেশে যদি অক্সিজেন না থাকে, মানুষকে যদি উন্মুক্ত পরিবেশ না দেওয়া যায়, তবে সবকিছুই বৃথা হয়ে যাবে।


আজ আমরা পরিবেশ রক্ষার তাগিদে বিভিন্ন রকম কাজ করতে পারি। যেমন গাছ লাগানো, পরিচর্যা করা, বাতাসে কার্বন নির্গমন কমানো, পলিথিনের ব্যবহার কমানো, মানুষকে পরিবেশ সম্পর্কে সচেতন করা ইত্যাদি। জলাভূমি এবং জঙ্গল রক্ষা করতে না পারলে মানব সভ্যতা বিলীন হয়ে যাবে। প্রতিটি মানুষকে পরিবেশ সম্পর্কে ভাবতে হবে। রাজনৈতিক নেতাদের উপর পরিবেশ রক্ষার তাগিদে চাপ সৃষ্টি করতে হবে। 


পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা দিনে দিনে বৃদ্ধি পেয়ে চলেছে। এই তাপমাত্রা যদি নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রাখা না যায়, তবে পাহাড়ের চূড়ার সমস্ত বরফ গোলে সমুদ্রের জলের স্তর বৃদ্ধি পাবে। উপকূলবর্তী এলাকা সমুদ্রের গর্ভে বিলীন হয়ে যাবে। মানুষকে অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে ঘুরে বেড়াতে হবে। দেখা দেবে আরোও নানান রকম মারণ রোগ। 


বিজ্ঞানীরা সব সময় এ ব্যাপারে সর্তকতা জারি করে চলেছেন। কিন্তু পৃথিবীর কোনও দেশের, কোনও সরকারের সে ব্যাপারে খুব একটা ভ্রুক্ষেপ নেই। শুধু সরকারের উপরে দোষারোপ না করে প্রতিটি মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে। মনে রাখতে হবে, সন্তানের জন্য অর্থ মজুত করলেও পরিবেশ যদি সুস্থ না থাকে, শুধু সেই অর্থ দিয়ে বেঁচে থাকা সম্ভব হবে না।




No comments:

Post a Comment