Breaking

Post Top Ad

Your Ad Spot

Wednesday, 17 November 2021

‌‌মধ্যমগ্রামে প্রশাসনিক বৈঠক : সুন্দরবনকে আলাদা জেলা করার ঘোষনা মুখ্যমন্ত্রীর

Sundarbans-is-a-separate-district

সমকালীন প্রতিবেদন : সরকারি প্রকল্পের কাজ দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য প্রত্যেক ‌জেলা শাসককে ১০ জন করে দক্ষ কর্মী নিয়োগের নির্দেশ দিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বুধবার উত্তর ২৪ পরগনার মধ্যমগ্রামের নজরুল মঞ্চে উত্তর ২৪ পরগনা জেলার প্রশাসনিক বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই বৈঠক থেকেই মুখ্যমন্ত্রী সুন্দরবনকে আলাদা জেলা হিসেবে গড়ে তোলার ঘোষণা রাখেন। এই জেলায় করোনার পাশাপাশি ডেঙ্গু, ম্যালেরিয়ার প্রভাব যথেষ্ট রয়েছে বলে উল্লেখ করে এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য দপ্তরের পাশাপাশি জেলা প্রশাসনকে বিশেষ উদ্যোগ নেওয়ার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী।


এদিনের প্রশাসনিক বৈঠকে বিধাননগরের চিংড়িঘাটা এলাকায় প্রতিদিন কেন দুর্ঘটনা ঘটছে জানতে চাওয়ার পাশাপাশি আগামীদিনে যাতে এই ধরনের দুর্ঘটনা না ঘটে, সে ব্যাপারে বিধাননগর এবং কলকাতা পুলিশকে যৌথভাবে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। পুরসভার কাজকর্ম সঠিকভাবে যাতে হয়, তারজন্য একজন করে পর্যবেক্ষক নিয়োগের নির্দেশ দেন তিনি। জন প্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, তাঁদের মোবাইল ফোনের সুইচ যেন কখনও বন্ধ না থাকে। এই জেলায় অবস্থিত চাকলা, কচুয়া ধামের উন্নয়নের ব্যাপারে রাজ্যের মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে বিশেষ দায়িত্ব দেন মুখ্যমন্ত্রী।


এদিনের প্রশাসনিক সভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন, আগামী ২০২৪ সালের মধ্যে রাজ্যের সমস্ত গ্রামে বিশুদ্ধ পানীয় জল পৌঁছে দেওয়ার কাজ শেষ করা হবে। ২০২২ সালের ২ জানুয়ারি থেকে ১০ জানুয়ারি এবং ২০ জানুয়ারি থেকে ৩১ জানুয়ারি সরকারের পরবর্তী দুয়ারে শিবির বসবে রাজ্যজুড়ে। এর পাশাপাশি, এখন থেকে প্রতি বছর ১ জানুয়ারি রাজ্যে ছাত্র দিবস পালন করা হবে বলে ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিন বসিরহাটের জনপ্রতিনিধি অভিযোগ করেন, বসিরহাট এলাকায় অনেক বেসরকারি নার্সিং হোম স্বাস্থ্য সাথী কার্ড গ্রহণ করছে না। এ ব্যাপারে কড়া সুরে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, যারা এইধরনের কাজ করবে, তাদের নার্সিং হোমের লাইসেন্স বাতিল করে দেওয়া হবে। এই মুহূর্তে বসিরহাট থেকে কলকাতা এবং হাওড়া যাওয়ার জন্য কোনও সরকারি বাসরুট নেই। সেটি যাতে নতুন করে চালু করা যায়, তার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। 


হাবড়ার বিধায়ক তথা মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক অভিযোগ করেন, এই জেলার একাধিক সরকারি হাসপাতালের জায়গা দখল করে নেওয়া হয়েছে। এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, হাসপাতাল করে খাওয়ার জায়গা নয়। এখানে পরিষেবা দেওয়াটাই মূল কাজ। অবিলম্বে দখল হয়ে যাওয়া মুক্ত করার জন্য জেলা শাসককে নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে প্রস্তাব দেওয়া হয়, করোনাকালে এই জেলায় দুজন সাংবাদিকের মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু তাঁরা এখনও পর্যন্ত কোনও সরকারি সহায়তা পান নি। এ ব্যাপারে যাতে তাঁরা সরকারি আর্থিক সহযোগিতা পান, সে ব্যাপারে নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি, উত্তর ২৪ পরগনা জেলা প্রেস ক্লাব ভবনটি যাতে সাংবাদিকরা নতুন করে ব্যবহার করতে পারেন, তার ব্যবস্থা করার জন্য জেলা শাসককে নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। 

সাংবাদিকদের প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে এদিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, জেলার যেসব পাক্ষিক, সাপ্তাহিক পত্রপত্রিকা সরকারি উন্নয়নের খবর পজিটিভভাবে উপস্থাপন করবে, নেগেটিভ খবরও পজিটিভ দৃষ্টিভঙ্গিতে যারা উপস্থাপন করে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করবে, সেই সব পত্রপত্রিকারকে রাজ্য সরকার বিজ্ঞাপন দেবে। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে এক পরিসংখ্যান দিয়ে এদিন বলা হয়েছে, এই জেলায় ৮৮ শতাংশ মানুষ করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন। দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৪৮ শতাংশ মানুষ। রাজ্য সরকারের হাতে পর্যাপ্ত টিকা রয়েছে। যারা এখনও দ্বিতীয় ডোজ নেন নি, তারা যেন অবিলম্বে দ্বিতীয় ডোজ নেন, তারজন্য এলাকায় প্রচারের ব্যাপারে পুরসভা এবং বিধায়কদের নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিনের মঞ্চ থেকেই হরিচাঁদ–গুরুচাঁদ বিশ্ববিদ্যাল‌য়ের স্নাতকোত্তর বিভাগে পঠনপাঠনের সূচনার পাশাপাশি জেলার মোট ১৪ টি প্রকল্পের সূচনা এবং  ৪ টি প্রকল্পের শিলান্যাস ভার্চুয়ালি করেন মুখ্যমন্ত্রী।



No comments:

Post a Comment