Breaking

Post Top Ad

Your Ad Spot

Monday, 20 September 2021

বনগাঁ ব্লক একদিনের মেগা ভ্যাকসিনেশনে রেকর্ড গড়লো

 

Record-in-mega-vaccinations

সমকালীন প্রতিবেদন : ব্লক প্রশাসন ও ব্লক স্বাস্থ্য দপ্তরের উদ্যোগে করোনার মেগা ভ্যাকসিনেশন কর্মসূচি সফল হল ‌বনগাঁয়। একদিনে একটি ব্লকে ১৫ হাজারেরও বেশি মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া হলো। গোটা ভারতবর্ষে এই মুহূর্তে সম্ভবত এটাই এক দিনে রেকর্ড পরিমাণ ভ্যাকসিনেশন, এমনই দাবি ব্লক স্বাস্থ্য দপ্তরের।

বনগাঁ ব্লকে মোট ১৬ টি গ্রাম পঞ্চায়েত। ব্লক হিসেবে যথেষ্ট বড় এবং বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে এই ব্লকের অবস্থান। জনসংখ্যা যথেষ্ট বেশি। স্বাভাবিকভাবে এই ব্লকের মানুষকে করোনার টিকাকরনের আওতায় আনতে সব সময় একটু বেশি তৎপর থাকতে হচ্ছে প্রশাসনকে। আর তার জন্য প্রতিমুহূর্তে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ব্লক স্বাস্থ্য দপ্তর। 

বনগাঁ ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক ডা:‌ মৃগাঙ্ক সাহারায় জানান, ‌'‌রবিবার ছুটির দিন থাকলেও মেগা ভ্যাক্সিনেশনের জন্য এই দিনটিকে বেছে নেওয়া হয়েছিল। এদিন এই ব্লকের ১৬ টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে শুধুমাত্র ছয়ঘডরিয়া গ্রাম পঞ্চায়েত বাদে বাকি ১৫ টি গ্রাম পঞ্চায়েতের সর্বসাধারণের জন্য ভ্যাক্সিনেশনের ব্যবস্থা করা হয়। বিশেষ পরিস্থিতির কারণে ছয়ঘরিয়া পঞ্চায়েতে এদিন এই কর্মসূচি বন্ধ রাখা হয়।'

ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক আরও জানান, '‌এ দিন ১৫ টি গ্রাম পঞ্চায়েত মিলিয়ে মোট ১৫০৬৫ জনকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়। এই সংখ্যাটি এযাবৎকালের মধ্যে সর্বোচ্চ, এমনকি গোটা দেশে এক দিনে একটি ব্লক এলাকায় এত পরিমান মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়ার রেকর্ড নেই বলে দাবি ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিকের। এই সাফল্যে সংশ্লিষ্ট এলাকার পঞ্চায়েত এবং পুলিশ প্রশাসনেরও সদর্থক ভূমিকা রয়েছে।' 

তিনি আরও বলেন '‌এই ব্লকটির বিস্তৃতি অনেক বেশী হওয়ায় আগামী দিনে আরও বড় করে যাতে ভ্যাক্সিনেশনের কর্মসূচি নেওয়া যায় এবং খুব দ্রুততার সঙ্গে তা সম্পন্ন করা যায়, তারই চেষ্টা করা হবে। কারন, যত তাড়াতাড়ি বেশি মানুষকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনা যাবে, ততই করোনার বিরুদ্ধে মোকাবেলা করতে সুবিধা হবে।'


এদিন ‌৬০ বছরের উর্ধ্বে বয়স্ক মানুষ, গর্ভবতী মহিলা, ছোট বাচ্চা আছে এমন মহিলা এবং সুপার স্প্রেডার– এই চারটে গ্রুপকে প্রাধান্য দিয়ে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়। পাশাপাশি, সাধারণ মানুষকেও ভ্যাকসিন দেওয়া হয়। এদিন যারা ভ্যাকসিন পেলেন, তাঁরা প্রথমবার অর্থাৎ ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ পেলেন।



No comments:

Post a Comment