Breaking

Post Top Ad

Your Ad Spot

Wednesday, 14 July 2021

টাকার জন্য স্ত্রীকে বিক্রি, পরে কুয়ো থেকে উদ্ধার

 

টাকার জন্য স্ত্রীকে বিক্রি, পরে কুয়ো থেকে উদ্ধার

সমকালীন প্রতিবেদন :  টাকার জন্য নিজের স্ত্রীকে বিক্রি করে দিয়েছিল স্বামী। জোর করে পরপুরুষের হাতে তুলে দেওয়ার চেষ্টা করেছিল তাঁকে। কিন্তু স্ত্রী ক্রেতাদের সঙ্গে যেতে রাজি না হওয়ায় তাঁকে ছুঁড়ে ফেলে দেয় কুয়োয়। নির্মম এই ঘটনা দেখে ছুটে আসেন গ্রামরক্ষী। নিজের জীবনকে বাজি রেখে কুয়ো থেকে তিনি উদ্ধার করেন ওই মহিলাকে। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে মধ্যপ্রদেশের রাজগড় জেলার গুনা এলাকায়। 


পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মাত্র ৫০ হাজার টাকার জন্য নিজের স্ত্রীকে বিক্রি করে দিয়েছিল গোপাল গুর্জর নামে এক ব্যক্তি। তিনজন ওই মহিলাকে কিনে নিয়েছিল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে মহিলা তাদের সঙ্গে যেতে রাজি না হওয়ায় স্বামী ও শাশুড়ি মিলে তাঁকে একটি কুয়োয় ফেলে দেয় বলে অভিযোগ। ঘটনাটি দেখতে পেয়ে ছুটে আসেন প্রহরারত গ্রামরক্ষী। আশপাশের লোকজনকে ডাকেন তিনি। চিৎকার চেঁচামেচিতে চলে আসেন প্রতিবেশীরাও। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে এলাকা ছেড়ে চম্পট দেয় অভিযুক্তরা। খবর পেয়ে চলে আসেন মহিলার বাবা নারায়ণ গুর্জর। অভিযোগ দায়ের করা হয় স্থানীয় থানায়। অভিযুক্তদের খোঁজে তদন্তে নেমেছে পুলিশ। স্থা


স্থানীয় সূত্রে আরও জানা গেছে, ওই এলাকায় 'ঝাগদা প্রথা' নামে একটি কুপ্রথা রয়ে গিয়েছে এখনও। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বনিবনা না হলে কিংবা পরিবারে অশান্তি হলে স্ত্রীকে বিক্রি করে দিতে পারে স্বামী। বিনিময়ে মোটা টাকা পেয়ে থাকে স্বামী। এই বর্বরতার শিকার হয়েছিলেন ওই মহিলা। পুলিশের কাছে তিনি জানিয়েছেন, গত রবিবার তাঁদের বাড়িতে তিনজন আসে। তাদের সঙ্গে দরদাম পাকা করে স্বামী। ৫০ হাজার টাকা দাম ওঠে তাঁর। ক্রেতারা বায়নাপত্র করে যায়। সোমবার বাকি টাকা মিটিয়ে তাঁকে নিয়ে যেতে আসে। কিন্তু তিনি যেতে অস্বীকার করেন। তা নিয়ে বাড়িতে ঝামেলা চরমে ওঠে। এরপরই স্বামী আর শাশুড়ি মিলে তাঁকে টেনে হিঁচড়ে নিয়ে গিয়ে বাড়ির কাছেই একটি কুয়োতে ফেলে দেয়। এদিকে, রাজগড়ের মৃগয়াস থানার অধীন সাগোরিয়া গ্রামের এ ঘটনার খবর সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই তুমুল আলোড়ন ছড়িয়েছে। এই ধরনের একটি কুপ্রথার বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন নেটিজেনরা। থানার ইনচার্জ সি পি দীক্ষিত বলেছেন, 'মহিলার অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু হয়েছে। অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ।'




No comments:

Post a Comment